বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরে হূমায়ূন আহমেদের ৭০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে ‘হূমায়ূন সাহিত্যে বাঙালির জীবন ও সমাজ’ শীর্ষক সেমিনার।

ঢাকা, ১৩ নভেম্বর ২০১৮। বাংলা সাহিত্যের জননন্দিত কথাসাহিত্যিক হূমায়ূন আহমেদের ৭০তম জন্মবার্ষিকী উদ্‌যাপন উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে হূমায়ূন সাহিত্যে বাঙালির জীবন ও সমাজ শীর্ষক সেমিনার আয়োজন করা হয়।

সেমিনারে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব জনাব মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ ও বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব জনাব রামেন্দু মজুমদার। মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কথাসাহিত্যিক মুম রহমান। আলোচক হিসেবে উপস্থিত থাকেন বিশিষ্ট অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন, অন্যপ্রকাশের প্রধান নির্বাহী জনাব মো. মাজহারুল ইসলাম এবং বিশিষ্ট অভিনেতা ডা. এজাজ আহমেদ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বরেণ্য কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

স্বাগত ভাষণে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরের মহাপরিচালক জনাব মো. আব্দুল মান্নান ইলিয়াস বলেন, সাংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রণালয় ১৪জন বিশিষ্ট ব্যক্তির জন্ম/মৃত্যুবার্ষিকী পালনের জন্য নির্দেশনা দিয়েছে। এই ১৪টি সেমিনারের মধ্যে হূমায়ূন আহমেদের ৭০তম জন্মবার্ষিকী অনুষ্ঠানই প্রথম। পর্যায়ক্রমে অন্যান্যদেরকে নিয়ে সেমিনার আয়োজনের পরিকল্পনা জাদুঘরের রয়েছে।

 

মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনে মুম রহমান বলেন, তাঁর লেখনীতে নিম্নবর্গের মানুষের জীবন ও সমাজকে তুলে ধরা হয়েছে। তাঁর বিখ্যাত চরিত্রগুলোর মধ্যে অন্যতম চরিত্র হিমু, মিসির আলী নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। সহজ-সরল কাহিনীর চিত্রায়ন, বর্ণনায় বাহুল্য বর্জন এবং বিষয় নির্বাচনে ভিন্নতায় একজন হুমায়ূন আহমেদ বাংলাসাহিত্যে নিজের অবস্থানকে স্বতন্ত্র দৃঢ়তায় স্থাপিত করেছেন। বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় এই লেখক আমাদের মাঝে না থাকলেও রেখে গেছেন তাঁর বিশাল সৃষ্টিভাণ্ডার। হূমায়ূন আহমেদের গদ্যের সরলভঙ্গি পাঠককে মুগ্ধ করে। পাঠকের সঙ্গে সহজবোধ্য ভাষায় তিনি যোগাযোগ গড়ে তোলেন।

আলোচনায় মেহের আফরোজ শাওন বলেন, হিমু চরিত্রটা মূলত তাঁর বাবাকে উদ্দেশ্য করে তৈরি করা। এই চরিত্রের মধ্যদিয়ে সামাজিক, রাজনৈতিক বিষয়গুলো ফুটিয়ে তুলেছেন। জনাব মো. মাজহারুল ইসলাম বলেন, হিমু একটি অন্যতম চরিত্র। যার মাধ্যমে তিনি সমাজের অনেক অসংগতি ও জীবনের নানা চিত্র তুলে ধরেছেন।

সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে জনাব মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ বলেন, হূমায়ূন তাঁর সৃষ্টির মাধ্যমে তরুণ সমাজের বাংলা ভাষায় বই পড়ার আগ্রহ তৈরি করেছেন।

জনাব রামেন্দু মজুমদার হূমায়ূন আহমেদ এর বিভিন্ন নাটকে অভিনয় করার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেন। সভাপতির বক্তব্যে সেলিনা হোসেন বলেন, তাঁর সৃষ্ট সাহিত্যকর্মের জন্যই তিনি জননন্দিত কথাসাহিত্যিক। তাঁর লেখার মাধ্যমেই তিনি আমাদের মাঝে চির অমর হয়ে থাকবেন। তাঁর চিন্তা-চেতনা, বুদ্ধিমত্তা সব কিছু তাঁর সাহিত্যকর্মের মধ্যে রেখে গেছেন।